খুলনার রুমানা, মহিলা ক্রিকেটের বাঘিনী।

ফারজানা নিপা, ঢাবি। | প্রকাশিত: ১৪ অক্টোবর ২০২০ ১১:০৯; আপডেট: ২৬ মে ২০২২ ০০:২৮

ছবিঃ ইন্টারনেট

বাংলাদেশ মহিলা ক্রিকেট দলের ডাকনাম লেডি টাইগার্স বা বাঘিনী। এই বাঘিনী শিবিরের একজন বাঘিনী হলেন খুলনার রুমানা আহমেদ। যার হুংকারে কেঁপে ওঠে বাইশ গজের ক্রিকেট পিচ। রুমানা আহমেদ ডানহাতি ব্যাটসম্যান, আবার ডানহাতি লেগ স্পিনারও তিনি। খুলনা জেলায় ১৯৯১ সালের ২৯শে মে জন্ম নেন এই বাংলাদেশী মহিলা ক্রিকেটার। বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা ক্রিকেট দলের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলে থাকেন এই ব্যাটসম্যান। রুমানা বাংলাদেশের সেরা মহিলা অল-রাউন্ডারদের মধ্যে অন্যতম। বাংলাদেশের মহিলা ক্রিকেটের ইতিহাসে প্রথম ওডিআই হ্যাট্রিক করার বিরল কীর্তিগাথার অধিকারী তিনি।

২০১০ সালে চীনের গুয়াংজুতে অনুষ্ঠিত এশিয়ান গেমসের মহিলা ক্রিকেট প্রতিযোগিতায় চীন জাতীয় মহিলা ক্রিকেট দলের বিরুদ্ধে ঐতিহাসিক রৌপ্যপদক লাভ করেন। তিনি ব্যাট এবং বলে উভয় দিকেই সমান দক্ষতা দেখান। ২০১২ সালের ২৫ আগস্ট আয়ারল্যান্ড মহিলা ক্রিকেট দলের বিরুদ্ধে একদিনের অভিষেক ঘটে তার। ২০১৬ সালে আয়ারল্যান্ড সফরে বাংলাদেশের পক্ষে তৃতীয় একদিনের আন্তর্জাতিকে ঐতিহাসিক হ্যাট্রিক করেন তিনি। বাংলাদেশের পক্ষে তার এ হ্যাট্রিকটি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রথম। ব্যাটে বলে জ্বলে ওঠেন তিনি। খেলায় তিনি ৩/২০ বোলিং পরিসংখ্যান গড়ে বাংলাদেশকে ১০ রানের নাটকীয় বিজয় এনে দেন ও ১-০ ব্যবধানে ওডিআই সিরিজ জয়ে সবিশেষ ভূমিকা রাখেন। ওডিআই সিরিজে তিনি ম্যান অব দ্য সিরিজের পুরস্কারও লাভ করেন।

রুমানার টি-২০ আন্তর্জাতিকে অভিষেক ঘটে ২০১২ সালের ২৮ আগস্ট আয়ারল্যান্ড মহিলা ক্রিকেট দলের বিরুদ্ধে। ২০১৭ সালের ১২জানুয়ারি সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে অনুষ্ঠিত ৫ ওডিআইয়ের সিরিজে বাংলাদেশ দলের অধিনায়কত্ব করেন। ঐ খেলায় তার দল ৮৬ রানে পরাজিত হয়ে ০-১ ব্যবধানে পিছিয়ে পড়ে। দেশের হয়ে ২০টি ওয়ানডে খেলে ৪২৫ রান করেছেন রুমানা। এই সংস্করণে ২০.১৬ গড়ে ২৪ উইকেট নিয়েছেন তিনি। ভারতের বিপক্ষে তার সেরা ৪/২০। দেশের হয়ে একমাত্র হ্যাটট্রিকের কৃতিত্ব তারই। ৩১টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে ১৪.৪৮ গড়ে ৪২০ রান এসেছে রুমানার ব্যাট থেকে। ৩০.১০ গড়ে নিয়েছেন ২০ উইকেট। ক্রিকেট অঙ্গনে তার রয়েছে বর্ণাঢ্য পথচলা। বিশ্বের মানচিত্রে নতুনভাবে দেশকে পরিচয় করিয়েছেন এবং পরিচিত হয়েছেন নিজেও। ক্রিকেট অঙ্গনে তার এ পথচলা দেখে অনেকেই অনুপ্রেরণা নিয়ে এই অঙ্গনে পথ চলতে পারেন।



বিষয়:


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top