এক নতুন যুগের সূচনা।

মাকসুদা আকতার তমা, ঢাবি | প্রকাশিত: ৮ নভেম্বর ২০২০ ১৮:৩৮; আপডেট: ২১ জানুয়ারী ২০২২ ১৩:৫৫

ছবিঃ ইন্টারনেট

কৃষ্ণাঙ্গ নারীরা হ্যারিসের জয়ের আনন্দে ফেটে পড়লো। 'কোনো কিছুই অসম্ভব নয়'- কমলা হ্যারিসের সর্বোচ্চ ক্ষমতার এই আরোহন কৃষ্ণাঙ্গ তথা আমেরিকান মেয়েদের মধ্যে এক নতুন দৃষ্টান্তের সূচনা করলো। আটলান্টা- ম্যাকন গা বিজ্ঞাপন সংস্থার মালিক ইওলান্দা লতিমোর একবার কৃষ্ণাঙ্গ নারীদের একটি তালিকা তৈরি করেছিলেন যারা দেখিয়েছিলেন যে, একজন কৃষ্ণাঙ্গ নারী হিসেবে কিভাবে জীবনযুদ্ধে বেঁচে থাকতে হয়। তিনি নিজে তার ৯১ বছর বয়সী দাদীর কাছে ছোটবেলায় মানুষ হন এবং তার দাদী কোনোরকম প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছাড়াই শেয়ারক্রপের কাজ করে পুরো পরিবারের দায়িত্ব বহন করেন। কিন্তু গত শনিবার ৪৬ বছর বয়সী এই লাতিমোর ই তাঁর ব্যক্তিগত পেন্টিওনে রুম তৈরি করে দিচ্ছিলেন "কমলা দেবী হ্যারিস" এর জন্য। শত জল্পনা-কল্পনার শেষে গত শনিবার আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেন "জোসেফ আর. বাইডেন" এবং তার সারথী হিসেবে ভাইস প্রেসিডেন্ট হলেন আমেরিকার প্রথম নারী বিশেষত প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ নারী "কমলা হ্যারিস"

রেসিজম ও লিঙ্গবৈষম্যের এই সংকটময় মুহূর্তে লাতিমোর মনে করেন, "হ্যারিস এই উত্তোরণ এক নতুন সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দেবে। পাশাপাশি প্রতিটি কৃষ্ণাঙ্গ নারীকে বার বার মনে করিয়ে দিবে প্রচেষ্টা ও আত্নবিশ্বাসী হলে যে কোনো কিছুই আসলে সম্ভব। তিনি আরও বলেন, "এটি সব সমস্যা একবারে সমাধান করে দিবে এমন নয়, তবে বিশ্বাস করি এটি সমাজে এবং নারীদের মাঝে এক ধরনের স্পৃহা জন্মাবে। বাইডেন-হ্যারিসের টিকিটের বিজয় নিয়ে শনিবার দেশজুড়ে উল্লাস ও উদযাপনের পাশাপাশি, কমলা হ্যারিসের এই পথচলা বিস্ফোরণগুলির মধ্যে আনন্দ-বিস্ফোরণ ঘটায় এবং একই সাথে গর্ব, আনন্দ, ত্রাণ এবং কঠোর লড়াইয়ের অর্জনের অনুভূতির এক অপার সংমিশ্রণ ঘটায়। বিশেষভবে নারী ও কৃষ্ণাঙ্গ নারীদের মাঝে। কমলা হ্যারিসের একজন শুভাকাঙ্ক্ষী এবং তাকে অনেকদিন ধরে চেনেন আটলান্টার মেয়র কিশা ল্যান্স বটম।ঐতিহাসিকভাবেই তিনি ব্লাক কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের উল্লেখ করেন এবং বলেন হ্যারিস হাওয়ার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করেন এবং সম্ভবত আমাদের মধ্যে সবচেয়ে মেধাবী স্টুডেন্ট ছিলেন।

তিনি আরও বলেন, "This has been a long time coming- a women of color, an H.B.C.U representative." তার মতে করোনা মহামারীর এই সময় এবং জর্জ ফ্লয়েডের ঘটনার পাশাপাশি পুলিশ এনকাউন্টারের সময় কৃষ্ণাঙ্গ নারী ও পুরুষদের যেভাবে নির্যাতন করা হয়েছে সেই প্রেক্ষিতে হ্যারিসের এই বিজয় অনেক বেশি প্রয়োজন ও সুনিশ্চিত ছিল। সান ফ্রান্সিসকোর মেয়র "লন্ডন ব্রীড" ও একই অনুভূতির অবতারণা করেন। তিনি বলেন, "আমি খুবই খুশি এই কারণে নয় যে কমলা আমার বন্ধু বরং তার মাধ্যমে রাজনীতি তথা সাধারণ নারীসমাজে জন্য এক আমূল পরির্তনের সূচনা ঘটতে যাচ্ছে। বিশেষ করে কৃষ্ণাঙ্গ নারীরাও অনেক বেশি অনুপ্রানিত হতে পারবে"। ১৯৯৩ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত সিনেটে ইলিনয়কে প্রতিনিধিত্বকারী একজন ডেমোক্র্যাট ব্রাউন বলেছেন, "এই স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য আমি প্রভুকে ধন্যবাদ জানালাম"। আমি বিশ্বাস করি এই মুহূর্তে জো বাইডেনকে দেশকে সুস্থ করার দরকার ছিল, এবং কমলা তাঁর সেকেন্ড - ইন-কমান্ড যিনি তাকে সহায়তা করার জন্য সঠিক ব্যক্তি। এছাড়াও এর আগে আরও এমন নারীরা ছিলেন যাঁরা এই পথে যাওয়ার পথ প্রশস্ত করেছিলেন, ত্যাগ স্বীকার করেছিলেন এবং কাঁধে কাঁধ মিলিয়েছিলেন। তবে উদযাপনের পরে, তিনি বলেছিলেন,সামনের দিনগুলোতে হ্যারিসকে কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যেতে হবে। বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতা সহ, অসহিষ্ণু জনগণের ভাবমূর্তি পরিবর্তন করা অনেক বেশি কষ্ট সাধ্য কাজ হবে। কারণ খুব স্বাভাবিকভাবেই এসব বিতর্ক চলে আসবে যে তিনি অভিবাসীদের মেয়ে, কৃষ্ণাঙ্গ এবং দক্ষিণ এশীয়, এবং তার একটি ভিন্ন জাতির সাতে বিয়ে হয়"। তিনি এই সমস্ত বিষয়গুলো পরীক্ষা করে দেখেন," এবং বলেন, "যারা বর্ণবাদ এবং ঘৃণার শিখাগুলি জ্বালাতে চান তারা তার সাথে কী করবেন তা তিনি জানেন না। " নিকিলা উইলিয়াম বলেন, "ছোট ছোট মেয়েদের জন্য এই বিজয় এক নতুন সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দিল, যারা মনে করতো আমার দ্বারা কিছুই হবে না কিংবা নিজেকে চিনতে যাদের সময় লাগতো।তারাই হয়তো আজ কমলাকে দেখে শক্তি খুঁজে পাবে, আত্মশক্তিতে বলীয়ান হয়ে উঠবে।

লেখকঃRick Rojas,Audra D.S Burch,Evan Nicole Brown and Richard Fausset. সূত্রঃ নিউইয়র্ক টাইমস।

অনুবাদঃ মাকসুদা আক্তার তমা



বিষয়:


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top