মায়ের দুধ শিশুর জীবনে প্রথম টিকা।

নারীকথন | প্রকাশিত: ৮ অক্টোবর ২০২০ ০২:৫৪; আপডেট: ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ ২০:০৬

মায়ের বুকের দুধই বাচ্চার জীবনের ভিত্তি। শিশুর জীবনের শুভসূচনা মায়ের দুধের মাধ্যমে। মায়ের দুধ শিশুর জন্য সর্বোত্তম খাবার এবং শালদুধ শিশুর জীবনের প্রথম টিকা। জন্মের এক ঘণ্টার মধ্যে মায়ের বুকে দিলে শিশু মায়ের দুধে তাড়াতাড়ি অভ্যস্ত হয় এবং মায়ের দুধ তৈরি হতে সাহায্য করে।

শিশুর জন্য, মায়ের নিজের জন্য, পরিবারের জন্য মায়ের দুধের উপকারিতা বলে শেষ করা যাবে না। শিশুর শারীরিক ও মানসিক বিকাশের জন্য প্রয়োজনীয় সব উপাদান মায়ের দুধেই আছে। খাবার সহজে হজম হয় এবং অ্যালার্জি হয় না।

মায়ের দুধে অ্যান্টিবডি থাকে, যা শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া ও অন্যান্য সংক্রামক রোগ থেকে শিশুকে রক্ষা করে।মায়ের দুধ খেলে শিশুর বুদ্ধি বাড়ে, কৌটার দুধ খাওয়া শিশুদের তুলনায় তাদের বুদ্ধি ৯ গুণ বেশি থাকে।মায়ের সঙ্গে আত্মার বন্ধন তৈরি হয়।

দুধ ঠিকমতো না এলে বা শিশু দুধ না পেলে অনেক মা দুশ্চিন্তায় ভোগেন।
এ রকমটি হলে কী করবেন

মোটেও ঘাবরাবেন না বরং বারংবার চেস্টা করে যাবেন।মানসিকভাবে দৃঢ় থাকবেন।

বুকে দুধ তৈরি হওয়া একটা ‘ডিমান্ড অ্যান্ড সাপ্লাই সিস্টেম’ অনুসরণ করে। অর্থাৎ শিশু যত দুধ টানবে, তত মায়ের মস্তিষ্কের পিটুইটারি গ্রন্থি উদ্দীপ্ত হয়ে বেশি বেশি প্রলেকটিন হরমোন তৈরি করবে। তত বেশি দুধ উৎপাদিত হবে। বুকের দুধ তৈরির একমাত্র উদ্দীপক বা স্টিমুলাস হলো শিশুর দুধ টানা। তাই যে মায়েরা একেবারে শুরু থেকেই বারবার দুধ দেননি, তাঁদের এই উৎপাদন প্রক্রিয়া ব্যাহত হয়,তাদের সন্তান বুকের দুধ থেকে বঞ্চিত হয়।

যদি আপনি চিন্তিত হন যে আপনি পর্যাপ্ত দুধ উৎপাদন করছেন না, তবে এরকম কিছু চেষ্টা করুন:

আপনার শিশুকে ঘন ঘন খাওয়ানো – আপনি যত বেশি স্তনপান করাবেন, তত বেশি মিল্ক প্রোডাকশন করতে পারবেন ।

নিশ্চিত করুন আপনার সুষম খাদ্য । প্রচুর স্বাস্থ্যকর পানীয় পান করুন ।প্রচুর ফ্লুইড ইনটেক করুন।দুধ,ডাব খান।

উপযুক্ত বিশ্রাম নিতে এবং ভালোভাবে ঘুমাতে ভুলবেন না ।

????ব্রেস্টমিল্ক স্টিমুলেট করে এমন কিছু খাবারের নামঃ

১।মসুর ডাল
২।যেকোনো মাছ(ক্যাটফিস,ছোটমাছ,বড়মাছ)
৩।রসালো সবজি(লাউ,পেঁপে,ঝিঙ্গা,তরী)
৪।রসালো ফল
৫।গরুর দুধ
৬।কালোজিরা
৭।ভাজা জিরা,ধনে
৮।ফিরিঙ্গি
৯।দেশি মুরগির বাচ্চা

***প্রচুর পরিমানে ফ্লুইড ইনটেক করতে হবে।
***পেট ফাপা থাকলে বা খাওয়ায় অরুচি থাকলে ডমপ্রিডন টাইপ(মোটিগাট)সাপ্লিমেন্ট খেতে পারেন।

ব্রেস্টমিল্কের সাথে শরীর থেকে প্রচুর ক্যালসিয়াম,আয়রন এবং জিংক চলে যায় শিশুর শরীরে।এতে মায়ের শরীরে ভিটামিনের ডেফিসেন্সি দেখা দিতে পারে।সেক্ষেত্রে মা কে রেগুলার খাবারের পাশাপাশি সাপ্লিমেন্ট(আয়রন ট্যাবলেট,ক্যালসিয়াম ট্যাবলেট) নিতে হবে।

????এক্সক্লুসিভ ব্রেস্টফিডিংএ শুধু যে বাচ্চার ই উপকার তা কিন্তু নয়,উপকৃত ‘মা’ রাও হন।এক্সক্লুসিভ ব্রেস্টফিডিং মানে হলো বাচ্চা ১ম ছমাস শুধুমাত্র বুকের দুধ খাবে।

????জম্মের পরপরই শিশুকে বুকের দুধ দিলে মায়ের প্রসবজনিত রক্তপাত বন্ধ হয়। পরবর্তীতে রক্তস্বল্পতা হয় না। গর্ভজনিত স্ফীত জরায়ু দ্রুত স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসে।

????যেসব মা শিশুদের বুকের দুধ খাওয়ান তাদের স্তন, জরায়ু এবং ওভারিয়ান ক্যান্সার হবার সম্ভাবনা কম থাকে।

????৫ মাস বয়স পর্যন্ত বুকের দুধ খাওয়ালে স্বাভাবিকভাবে জন্মনিয়ন্ত্রনে সাহায্য করে এবং ২ বৎসর বয়স পর্যন্ত বুকের দুধ খাওয়ালে ঘন ঘন গর্ভবতী হবার সম্ভাবনা কমে যায়।

????ব্রেস্টফিডিং পজিশন(positioning)

***প্রাথমিক পর্যায়ে খুব জরুরি একটা বিষয় হল পজিশনিং।পজিশনিং ঠিক না হলে বাচ্চা ভালোভাবে খেতে পারেনা,বাচ্চার পেটে খাবারের সাথে গ্যাস ঢুকে যায়।

কি করবেন?

এক্ষেত্রে বেবি নার্সিং পিলো আপনাকে খুব সাহায্য করবে,প্রয়োজনে নার্সিংপিলো ব্যাবহার করুন।

•এক পার্শ্বে স্তন পুরাপুরি টানার পর অন্য পার্শ্বের স্তনে ধরুন।

•পরের বার যখন খাওয়াবেন তখন শেষের স্তনটি দিয়ে শুরু করুন।

এসময় মা,খালা,দাদি,নানী কারো অযৌক্তিক কোন কথায় কান দেবেননা।অনেকেই বলবে ‘বাচ্চা দুধ পাচ্চ্ছেনা বিকল্প খাবারের ব্যাবস্থা করো।’

নিজে চেস্টা করে যাবেন যেন কোনভাবেই আপনার সন্তান তার জীবনের প্রথম হক থেকে বন্চিত না হয়।????

©রুবাইয়া বিনতে রাজ্জাক
ফাউন্ডার,হ্যাপি প্যারেন্টিং।



বিষয়:


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top